কলকাতার বিদ্যুৎ বণ্টনে একটি বেসরকারি সংস্থাকে কেন প্রাধান্য ? মমতাকে প্রশ্ন কেন্দ্রের

মমতাকে প্রশ্ন কেন্দ্রের
শেয়ার করুন

মমতাকে প্রশ্ন কেন্দ্রের কলকাতায় বিদ্যুৎ বণ্টনে একটি বেসরকারি সংস্থার একচেটিয়া ব্যবসাকে তিনি কেন বাঁচাতে চাইছেন, তা নিয়ে খোদ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে পাঠানো চিঠিতে প্রশ্ন তুললেন মোদী সরকারের বিদ্যুৎমন্ত্রী রাজকুমার সিংহ।

মমতাকে লেখা চিঠিতে রাজকুমার জানিয়েছেন, কলকাতায় যে বেসরকারি সংস্থা বিদ্যুৎ বণ্টন করে, তারা দেশে চড়া হারে মাসুল আদায়কারী সংস্থাগুলির মধ্যে অন্যতম। কলকাতায় তাদের একচেটিয়া কারবার। বিদ্যুৎ আইনে সংশোধন করে কেন্দ্র বিদ্যুৎ বণ্টনে প্রতিযোগিতা নিয়ে আসতে চায়। একটি সংস্থাকেই নির্দিষ্ট এলাকায় বিদ্যুৎ বণ্টনের লাইসেন্স দেওয়ার প্রথা সে ক্ষেত্রে উঠে যাবে। যে সংস্থা কম মাসুলে বিদ্যুৎ এবং ভাল পরিষেবা দেবে, মানুষ তাদের কাছ থেকেই বিদ্যুৎ নিতে পারবেন। এতে কলকাতার ওই সংস্থাও প্রতিযোগিতার মুখে পড়বে।

‘আপনি কেন এই বেসরকারি সংস্থাকে প্রতিযোগিতা থেকে বাঁচাতে চাইছেন, তা স্পষ্ট নয়।’

কেন্দ্রীয় বিদ্যুৎমন্ত্রী রাজকুমার সিংহ

বিদ্যুৎমন্ত্রী মুখ্যমন্ত্রীকে জানিয়েছেন, ‘দেখা যাচ্ছে, আপনার অফিসারেরা আপনাকে ঠিকমতো ব্যাখ্যা করেননি।’ এই সূত্রেই বেসরকারি ও সরকারি ক্ষেত্রে ৪০ লক্ষ ও দু’কোটি গ্রাহকের পরিসংখ্যান তুলে ধরছে সংশ্লিষ্ট সূত্র। গত বছর থেকেই মোদী সরকার বিদ্যুৎ আইনে সংশোধনে উদ্যোগী। গত বছরের বিদ্যুৎ আইন সংশোধনী বিলে আপত্তি জানিয়ে পশ্চিমবঙ্গ অভিযোগ তুলেছিল, শিল্পপতিদের স্বার্থে নতুন আইন আনা হচ্ছে। অন্যান্য রাজ্যও এতে আপত্তি তোলে।

কেন্দ্রের অভিযোগ, একচেটিয়া ব্যবসার বোঝা মানুষকেই বইতে হয়। কলকাতায় চড়া বিদ্যুৎ মাসুল তার উদাহরণ। রাজ্য বিদ্যুৎ বণ্টন নিগমও বিল আদায়, বিদ্যুৎ সংবহনে লোকসানের দিক থেকে পিছিয়ে। সেই সূত্রে রাজ্য নিগমের মাসুলও দেশে অন্যতম বেশি বলে কেন্দ্রের দাবি।

You may also like...